মহিলাদের জন্যে অল্প পুঁজির কিছু সহজ লাভজনক ব্যবসা

মহিলাদের জন্যে অল্প পুঁজির কিছু সহজ লাভজনক ব্যবসা
Website Development Services Kolkata

বহু মানুষ এখনো পর্যন্ত এটাই মনে করেন যে মহিলারা ঘরের ভেতরেই ভালো। যাদের মধ্যে একটু আধুনিক মানসিকতার ছোঁয়া লেগেছে তাঁরা কেউ কেউ চাকরির চেষ্টা করেন। কিন্তু কোনো মহিলা কি ব্যবসা করতে পারে!? আজও একথা অধিকাংশ বাঙালিই কল্পনাও করতে পারেন না।

অথচ, সত্যি বলতে কি হিসেবে নিকেশ, হাজারো খুচরো জিনিস মনে রাখার ক্ষমতা, মানুষের সঙ্গে ঠিকঠাক কথা বলতে পারা, আতিথেয়তা, ধৈর্য ইত্যাদি নানান ব্যবসায়িক বৈশিষ্ট মহিলাদের সহজাত গুন — আলাদা করে শিখতে হয় না। তাই ব্যবসা করা পুরুষদের থেকে মহিলাদের পক্ষে আসলে কিছুটা সহজ। তবু শুধুমাত্র সমাজে ছোট বয়েস থেকে মেয়েদের প্রতি বিরূপ মনোভাবের কারণে তাঁরা নিজেরাও বিশ্বাসই করতে পারেন না যে তাঁরাও একজন সফল ব্যবসায়ী হতে পারেন।

তাই যাঁরা এই মনোভাব কিছুটা কাটিয়ে উঠতে পেরেছেন, এবং যাঁরা নিজেদেরকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করতে ইচ্ছুক, অথচ বুঝতে পারছেন না যে কি করবেন, তাঁদের জন্যে কাজের খবর-এর এই বিশেষ প্রতিবেদন। আপনাদের যার মধ্যে যে ধরণের গুনাগুন আছে এবং আপনাদের যেরকম পুঁজি আছে সেই হিসেবে সবার উপযুক্ত নানান সহজ ব্যবসার খবরাখবর এখানে দেওয়া হলো।

কি রকম ব্যবসা?

এর আগে আমরা বিভিন্ন অনলাইন ব্যবসার কথা বলেছি। তবে আজকে যেগুলো বলছি সেগুলো প্রধানতঃ কোনো বিশেষ প্রিপারেশন ছাড়াই যেকোনো সময় শুরু করা যাবে এবং এগুলো বিশেষতঃ আমাদের মহিলা পাঠিকাদের জন্যে। যদিও পুরুষরাও অবশ্যই করতে পারেন। আমরা অনলাইন ও অফলাইন — দুই ধরণের ব্যবসার কথাই এখানে বলবো।

টি-শার্ট প্রিন্টিং

পুরুষ হোক বা মহিলা, টি-শার্ট আমরা সবাই কমবেশি পরি। আর টি-শার্ট কেনার সময় আমরা যেটা দিয়ে আমরা পছন্দ করি, সেটা হলো তার ওপর থাকা ডিজাইন বা লেখা। আচ্ছা, কেমন হয় যদি আপনি নিজের মনের মতো লেখা বা ডিজাইনে আপনার টি-শার্ট এ দিতে পারতেন? বা আপনার কোনো প্রিয়জনের ছবি আপনার টি-শার্ট এ যদি থাকে? হ্যাঁ, এটা সম্ভব, এবং এই ব্যবসা শুরু করতে খুব বেশি কোনো খরচ-ও পড়ে না। একটা টি-শার্ট প্রিন্টিং মেশিন সাধারণত ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকার মধ্যে হয়ে যায় এবং সাথে লাগে একটা প্রিন্টার, যার দাম পড়ে মোটামুটি ৭,০০০টাকা। আর বিভিন্ন সাইজ ও রং এর টি-শার্ট আপনি পেয়ে যাবেন মোটামুটি ৬০টাকা থেকে ৮০টাকার মধ্যে। অর্থাৎ, আপনার যদি ২০,০০০ টাকা পুঁজি থাকে, আপনি নিশ্চিন্তে ব্যবসা শুরু করতে পারেন। একটা প্রিন্ট করা টি-শার্ট আপনি ২৫০টাকা থেকে শুরু করে ৪০০ টাকায় খুব সহজেই বিক্রি করতে পারেন যেখানে আপনার খরচ পড়বে মোটামুটি ১০০টাকা।

কাপল টি-শার্ট, ফ্যামিলি-টি-শার্ট, বিভিন্ন ক্লাবের ইভেন্ট এর লোগো বা প্রচার এর টি-শার্ট, রাজনৈতিক দলের টি-শার্ট, স্কুল ও অফিস এর লোগো লাগানো টি-শার্ট এরম আরো অনেক ধরণের টি-শার্ট এর অর্ডার প্রচুর পরিমানে আপনি খুব সহজেই পেয়ে যেতে পারেন। একটা টি-শার্ট সম্পূর্ণ ভাবে প্রিন্ট করে রেডি করতে সাধারণত ৩-৫মিনিট সময় লাগে। অর্থাৎ, এই ব্যবসা আপনাকে খুব সহজেই এবং খুব অল্প সময়েই একজন সফল ব্যবসায়ী করে দিতে পারে।

কেক ও চকোলেট বানানো

বার্থডে হোক বা অ্যান্নিভার্সারি — কেক ছাড়া যেন এসব অনুষ্ঠান অসম্পূর্ণই থেকে যায় । অথচ একটু ছোট শহর বা গ্রামে হাতের সামনে কেকের দোকান পাওয়া যায় না বা কোয়ালিটি ভালো না। ঠিক এই জায়গায় আপনি কেক ও চকোলেট বানিয়ে অনেক ভালো লাভ করতে পারেন। তবে এই ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে কিছু জিনিস, যেমন মাইক্রোওভেন, কেক বানানোর পাত্র, কেক এর কাঁচামাল এসবের ব্যবস্থা করতে হবে। সঙ্গে আপনাকে বিভিন্ন ধরণের কেক বানানোর প্রক্রিয়া শিখতে হবে ও সেগুলো ট্রাই করে দেখতে হবে। বিভিন্ন ইউটিউব চ্যানেলে আপনি অনেক ট্রেনিং ভিডিও পেয়ে যাবেন। আর কাঁচামাল অনলাইনে বা বিভিন্ন বড়ো দোকানে পেয়ে যাবেন। তবে চেষ্টা করবেন যাতে আপনার কেক এর কোয়ালিটি ভালো হয়, কারণ নতুন জায়গায় মানুষ এসব জিনিস তখনি কেনে যখন কোয়ালিটি আর দাম ভালো হয় হয়।

ফুড হোম ডেলিভারি

যেসব মহিলারা রান্নায় পটু, কিন্তু হোটেল বা রেস্টুরেন্ট করার কোনো পুঁজি নেই, এই ব্যবসা বিশেষ ভাবে তাদের জন্যে। আপনার এলাকায় যেসব অফিস ও মেস আছে সেগুলোতে আপনি অর্ডার নিয়ে নানান রকমের খাবার পৌঁছে দিয়ে যথেষ্ট ভালো ইনকাম করতে পারেন। কিভাবে ? আপনি যেধরনের খাবার বানাতে চান তার নাম ও দামের একটা তালিকা বানিয়ে সাথে আপনার ফোন নম্বর দিয়ে কাগজে প্রিন্ট করে বিভিন্ন অফিস ও মেস এর সামনে সাঁটিয়ে দিন। যাদের খাবার এর প্রয়োজন থাকবে তারা ফোন করলে জানিয়ে দিন আজ আপনার মেনু তে কি কি আছে এবং সেই হিসেবে অর্ডার নিয়ে নিন। খাবার তৈরী হয়ে গেলে ফয়েলে প্যাক করে পৌঁছে দিন।

রান্নার পদের ভ্যারাইটি, স্বাদ, খাবারের পরিমান ও দাম যদি ঠিক থাকে, নিশ্চিতভাবে বলা যায় যে কিছুদিনের মধ্যেই আপনার ব্যবসা ফুলে-ফেঁপে উঠবে।

ড্রেস তৈরী করা

যতই শপিং মল এর ছড়াছড়ি হোক, মনমতো ড্রেস যা আপনার গায়ে ঠিকঠাক ফিটিং হবে, পেতে গেলে আপনাকে অবশ্যই ড্রেস ডিজাইনার দিয়ে বানাতে হবে। সে কুর্তি-চুড়িদার হোক, ব্লাউজ বা অন্য কিছু, এখনো বাজারে ঠিকঠাক ড্রেস ডিজাইনারের খুব অভাব। তাই, আপনার যদি এই ব্যবসায় একটুও ইন্টারেস্ট থাকে, একদম দেরি করবেন না। যদি আপনি চান, ছোট্ট কোনো কোর্সে ভর্তি হয়ে যেতে পারেন বা যেকোনো পরিচিত দর্জির কাছে বেসিক তা শিখে নিয়ে ইউটিউব দেখে বাকিটা রপ্ত করতে পারেন। আর এই ব্যবসা শুরু করতে আপনার একটা ইলেকট্রিক সেলাই মেশিন ছাড়া বিশেষ কোনো ইনভেস্টমেন্ট-ও করতে হয় না। আজকাল বিভিন্ন ভালো ব্র্যান্ড এর ইলেকট্রিক সেলাই মেশিন ৬০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকায় সহজেই পাওয়া যায়। বিশেষ করে এইসব মেশিন গুলোতে অনেক সেলাই এর প্যাটার্ন থাকে যা আপনার কাজকে অনেক সহজ করে দেয় এবং অধিকাংশ সেলাই মেশিন কোম্পানি আপনাকে ফ্রীতে বাড়ি এসে ট্রেনিং-ও দিয়ে দেয়।

তবে একসাথে সব ধরণের কাপড়ের কাজ শুরু করার চেয়ে যেকোনো এক ধরণের ড্রেস এর ডিজাইন করুন যাতে আপনার কাজ-ও ভালো হবে এবং বাজারে আপনার নাম সহজেই ছড়িয়ে যাবে। বিশ্বাস করুন বা না করুন, যারাই এই ব্যবসা শুরু করেছেন, তাঁরা এতো কাজ পান যে খরিদ্দার ফিরিয়ে দিতে হয়। তবে, অবশ্যই আপনার কাজে কিছু নূতনত্ব থাকতে হবে এবং কাজের কোয়ালিটি ভালো হতে হবে।

আরো হাজারো রকমের কাজ আছে যেগুলো মহিলারা বাড়িতে বসে অনায়াসে করতে পারেন এবং ভালো উপার্জন করতে পারেন। যদি আপনারা সেসব কাজের ব্যাপারে জানতে চান, বা ওপরে দেওয়া কাজগুলোর ব্যাপারে কোনো প্রশ্ন থাকে, অবশ্যই কমেন্ট করে জানান বা আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

Post Free Classified Ad | Kajer Khobor

Related Articles

2 Comments

Avarage Rating:
  • 0 / 10

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *